ঢাকা শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে সেই নারীর নবজাতকের নাম রাখলেন ‌র‌্যাব কমান্ডার

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত: শনিবার, ২ মে, ২০২০
নবজাতকের হাতে একটি কলম ও মায়ের জন্য কিছু উপহারসামগ্রী প্রদান করেন র‌্যাব-৯ শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের কমান্ডার এএসপি আনোয়ার। ছবি: ঈশ্বরদীনিউজ টুয়েন্টিফোর সংগৃহীত

প্রসবকালীন জটিলতায় জীবন সংশয়ে পড়া সেই প্রসূতি নারীর সদ্যজাত সন্তানের নাম রাখলেন র‌্যাব কমান্ডার। এই নারীর গর্ভকালীন সঙ্কটাপন্ন সময়ে নিজের সরকারি গাড়িতে করে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌঁছে দিয়েছিলেন র‌্যাব-৯ শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের কমান্ডার এএসপি মোঃ আনোয়ার হোসেন শামীম। শুধু তাই নয়, শিল্পী রানি পাল নামের এই প্রসূতি নারীকে কোলে করে তিনতলার প্রসূতি ওয়ার্ডে নিয়ে যান তিনি।

এনিয়ে গত ২৮ এপ্রিল ঢাকা ট্রিবিউনে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর দেশব্যাপী প্রশংসার ঝড় ওঠে। পরবর্তীতে হাসপাতালে নিরাপদে এক পুত্রসন্তান জন্ম দেন ওই নারী। কৃতজ্ঞতাস্বরূপ পরের দিনই নারীর স্বামী রনজিত দাস এএসপি আনোয়ারকে ফোন করে নবজাতকের জন্য নাম দেওয়ার অনুরোধ জানান।

গত ২৬ এপ্রিল রাত ১২টায় র‌্যাব কর্মকর্তা হাসপাতালে নেওয়ার পর পুত্রসন্তান জন্মলাভ করেন। শিশুটির জন্মলাভের প্রায় একসপ্তাহ পর শুক্রবার (১ মে) ছিলো নবাগত শিশুটির নামকরণের আনুষ্ঠানিকতা।

র‌্যাব কমান্ডার যথাসময়ে মৌলভীবাজার শ্রীমঙ্গল উপজেলা  শহরতলীর দক্ষিণ উত্তরসুর গ্রামে রনজিত দাসের বসতবাড়িতে হাজির হয়ে শিশুটির নাম শচীন চন্দ্র দাস রাখেন। তার অনুরোধে কোনরকম আনুষ্ঠানিকতা ব্যতীত একেবারে ঘরোয়াভাবে সম্পন্ন হয় নামকরণের প্রথা।

সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী তিনি ওই বাড়ির কাউকে বাইরে আসতে দেননি, এমনকি তিনি নিজেও যাননি ঘরের মধ্যে। দরজার সামনে উঁকি দিয়ে তিনি বাচ্চাটির নামকরণের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন। এসময় তিনি নবজাতকের হাতে একটি কলম তুলে দেন এবং তার মায়ের জন্য কিছু উপহারসামগ্রীও প্রদান করেন।

নবজাতকের মা শিল্পী রানী পাল বলেন, “স্যার যে আমাদের বাড়িতে এসে আমার সন্তানের নাম রেখে গেলেন, এটা আমাদের জন্য অনেক বড় ব্যাপার। আমি চাই, আমার ছেলে বড় হয়ে যেন স্যারের মতোই একজন মানুষ হয়।”

নবজাতকের নাম শচীন চন্দ্র দাস রাখার কারণ জানতে চাইলে র‌্যাব কমান্ডার এএসপি আনোয়ার বলেন, “উপমহাদেশের বিখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ শচীন দেব বর্মনের একজন বড় ভক্ত আমি। তাছাড়া ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকারের খেলা দেখতেও অনেক পছন্দ করতাম সেই ছোটবেলা থেকে। এই দু’জন মহাগুণী মানুষের নামের সঙ্গে মিলিয়েই শিশুটির নাম রেখেছি আমি।”

তিনি আরও বলেন, “ছেলেটি বড় হয়ে অনেক ধনী বা জ্ঞানী-গুণী হবে কিনা, তানিয়ে আমার কোনও চাওয়া নেই। শুধু চাই, সে যেন একজন মানুষ হয়। মানবজাতি ও অন্য সকল জীবের প্রতি গভীর ভালবাসা বুকে ধারণ করেই যেন বেড়ে ওঠে। নবজাতকের জন্য এটাই আমার দোয়া।”

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২০
 
themebaishwardin3435666