ঢাকা শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন

খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি চাওয়া হয়নি: বিএনপি

ঈশ্বরদীনিউজ২৪.নেট, প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: রবিবার, ৭ এপ্রিল, ২০১৯
গণ–অনশনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ নেতা-কর্মীরা। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট, রমনা, ঢাকা, ৭ এপ্রিল।

কারাবন্দী চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়ে বিএনপির নেতারা বলেছেন, চেয়ারপারসনের প্যারোলে মুক্তি তারা চান না। সরকার জামিন না দিলে আন্দোলনের মাধ্যমে দলের তাকে মুক্ত করার অঙ্গীকার করেন তারা।

রোববার (৭ এপ্রিল) বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে গণ অনশন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তারা এসব কথা বলেন। এদিকে পুলিশের মৌখিক অনুমতি নিয়ে কর্মসূচি পালন করতে গেলেও হল কর্তৃপক্ষ প্রথমে বাধা দেয় বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির নেতারা।

বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ দেশ রূপান্তরকে বলেন, গণ অনশন কর্মসূচি পালনে পুলিশ মৌখিক অনুমতি দিলেও কর্তৃপক্ষ হল দিতে টালবাহানা করে। আধা ঘণ্টা পরে মিলনায়তন খুলে দেওয়া হয়। হল কর্তৃপক্ষের টালবাহানায় আধা ঘণ্টা দেরিতে দলের চেয়ারপারসনের সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গণ অনশন শুরু হয়। শেষে হয় বিকেল ৪টায়। ফ্রুটিকা পানি পান করিয়ে নেতাদের অনশন ভাঙান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ।

গত মঙ্গলবার রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক দোয়া মাহফিলে এ কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়। হাত ও পায়ের জোড়ায় গুরুতর ব্যথা, ভালো ঘুম না হওয়া ও রক্তে সুগারের মাত্রা বেশি থাকা অবস্থায় খালেদা জিয়াকে গত সোমবার পুরান ঢাকার পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুর্নীতি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দী রয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। খালেদার মুক্তির দাবিতে এ নিয়ে কয়েক দফা অনশন কর্মসূচি পালন করে বিএনপি।

সভাপতির বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, মূল কথাটি হচ্ছে যে কোন মূল্যে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। সে জন্য আন্দোলন শুরু করতে হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে ভর্তি করা হলেও তার চিকিৎসা হচ্ছে না। কারণ সরকারি হাসপাতালের নিয়ন্ত্রণ থাকে সরকারের হাতেই। সেখানে সেভাবেই চিকিৎসা দেওয়া হয়। তাকে তার পছন্দের বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে হবে।

‘আবেদন করলে খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয় সরকার বিবেচনা করবে’ গত শনিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের এমন বক্তব্যের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপি কারাবন্দী চেয়ারপারসনের প্যারোলে মুক্তি চায়নি।

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়াকে সরকার বেশি দিন আটকে রাখতে পারবে না। জনগণ বিএনপির সঙ্গে আছে। শিগগিরই দলকে ঐক্যবদ্ধ করে বিএনপি ঘুরে দাঁড়াতে পারলেই কারাবন্দী খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত হবে।

গণ অনশনে সংহতি প্রকাশে করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আব্দুর বর বলেন, ঘরে বসে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইলে তা হবে না। রাজপথে নামতে হবে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ড. কামাল হোসেন, আ স ম আব্দুর রব, কাদের সিদ্দিকীসহ ফ্রন্টের নেতাদের মধ্যে ঐক্য রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ফ্রন্টের নেতাদের ভুল বোঝার কোন কারণ নেই। ফ্রন্টের সাত দফার প্রথম দাবি হলো খালেদা জিয়ার মুক্তি।

গণ অনশনে সংহতি প্রকাশ করে আরও বক্তব্য রাখেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, ২০ দলীয় জোট নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মোহাম্মাদ ইব্রাহিম প্রমুখ। বিএনপি নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, আহমদ আজম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম প্রমুখ।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
error: © স্বত্ব ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর