ঢাকা বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৩১ পূর্বাহ্ন

পাবনায় ভেজাল দুধ-ঘি তৈরি থামছেই না

পাবনা প্রতিনিধি | ঈশ্বরদীনিউজটোয়েন্টিফোর.নেট
  • প্রকাশিত: শনিবার, ২২ জুন, ২০১৯

পাবনায় ভেজাল দুধ, ছানা ও ঘি তৈরির হোতাদের অপকর্ম কিছুতেই যেন বন্ধ করা যাচ্ছে না। ভেজালবিরোধী অভিযানের পর কিছুদিন যেতে না যেতেই তারা আবারও একই অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন। এই ভেজালকারবারিরা এখন শূন্য থেকে কোটিপতি বনে গেছেন। পাবনার সুজানগরে মাত্র ২৫ দিনের ব্যবধানে ভেজাল দুধ ও ঘি তৈরির দুটি বড় কারখানা থেকে বিপুল পরিমাণ ভেজাল দুধ ও ঘি এবং এসব তেরির উপকরণ জব্দ করা হয়েছে। কিন্ত এর হোতাদের ধরা সম্ভব হচ্ছে না। এ নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

র‌্যাবের অভিযানে পাবনার সুজনগর পৌরসভার নন্দিতাপাড়ার একটি ভেজাল দুধ ও ঘি কারখানা থেকে ১ হাজার ২১৬ লিটার ভেজাল দুধ, ঘি ও মাঠা তৈরির উপকরণ পামওয়েল, দুই মণ সয়াবিন, এক মণ ভেজাল মাঠা এবং দুই মণ লবণসহ বিপুল পরিমাণ উপকরণ আটক করা হয়। কিন্ত ওই ভেজাল কারখানার মালিক দুলাল ঘোষকে আটক করা সম্ভব হয়নি। ঈদের এক সপ্তাহ আগে একই উপজেলার আহম্মদপুর থেকে একটি ভেজাল কারখানায় অভিযান চালিয়ে প্রায় ৫০ মণ নকল ঘি এবং ঘি তৈরির মেশিনসহ অন্যান্য মালামাল জব্দ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কিন্ত ওই কারখানার মালিক সুনিল কুন্ডকে খুঁজে পায়নি পুলিশ।

র‌্যাব-১২ পাবনা ক্যাম্প জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার এস এম জামিল আহমেদের নেতৃত্বে র‌্যাব সদস্যরা বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সুজানগর পৌরসভার নন্দিতাপাড়ায় শ্রী দুলাল ঘোষের নকল দুধ, মাঠা ও ঘি প্রস্তুতকারী কারখানায় অভিযান চালায়। অভিযানকালে কারখানার দুই শ্রমিক আলাল প্রামাণিক (২৪) ও মিঠন প্রামাণিককে (১৮) আটক করা হয়। এ সময় কারখানার ভেজাল দুধ, মাঠা ও ঘি প্রস্তুতের উপাদান পামওয়েল ১ হাজার ২১৬ লিটার, সয়াবিন তৈল ৭৮ লিটার, ভেজাল মাঠা ২৫ কেজি, ভেজাল মাখন ২৭ কেজি, ব্লেন্ডার মেশিন ৬টি এবং ৭৫ লবণ কেজি জব্দ করে র‌্যাব।

র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে কারখানার মালিক দুলাল ঘোষ (৪০) এবং তুফাই খাঁ (৫০) ও কমল ঘোষ (৪৫) পালিয়ে যান। এ ঘটনায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে সুজানগর থানায় মামলা করা হয়েছে।

সুজানগর থানা পুলিশের ইন্সপেক্টর (তদন্ত) অরবিন্দ সরকার জানান, মামলার ভিত্তিতে অপর তিন আসামিকে ধরতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

এদিকে স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে গোপনে দুলাল ঘোষ অবৈধভাবে এই নকল দুধ, মাঠা ও ঘি প্রস্তুত করে বিক্রি করার মাধ্যমে ৫ তলা একটি ও ৩টি বিলাসবহুল বাড়ি নির্মাণসহ কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। এই নকল দুধ সে বিভিন্ন নামীদামি কোম্পানিতে সরবরাহ করে আসছে। এর আগে একাধিকবার স্থানীয় প্রশাসন দুলাল ঘোষের এই গোপন কারখানায় অভিযান চালিয়ে তাকে জরিমানা করে। কিন্ত কিছুদিন যেতে না যেতেই সে আবারও একই ব্যবসা চালিয়ে যায়।

এর আগে ঈদুল ফিতরের এক সপ্তাহ আগে সুজানগর উপজেলার আহম্মদপুর থেকে একটি ভেজাল কারখানায় একইভাবে অভিযান চালিয়ে প্রায় ৫০ মণ নকল ঘি এবং ঘি তৈরির মেশিনসহ অন্যান্য মালামাল জব্দ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কিন্ত ওই কারখানার মালিক সুনিল কুন্ডকে খুঁজে পায়নি পুলিশ।

এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, সুনিল, দুলাল ঘোষসহ সংশ্লিষ্ট ভেজাল কারবারিরা স্থানীয় প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতাসহ প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করেই দীর্ঘদিন ধরেই এই অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। এ কারনেই কারখানার মালিক কখনোই ধরা পড়ে না।

সুজানগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুজিৎ দেবনাথ জানান, মানবদেহের জন্য খুবই ক্ষতিকারক বিষাক্ত কেমিক্যাল দিয়ে ওই কারখানায় নকল ঘি তৈরি করে আসছিল সুনিল কুন্ডু। সেখানে অভিযান পরিচালনা করে প্রায় ৫০মণ নকল ঘি জব্দ করা হয়। যার বর্তমান বাজার দাম প্রায় ২০ লাখ টাকা।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: