ঢাকা শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন

বেড়ায় আওয়ামী লীগের কাউন্সিল নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

পাবনা প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৮ জুন, ২০১৯
বেড়ায় আওয়ামী লীগের কাউন্সিল নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

পাবনার বেড়া পৌর এলাকার দুই নং ওয়ার্ড (বনগ্রাম উত্তর মহল্লায়) আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ১৭ জন গুরুতর আহত হয়েছে। এদেরকে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে।

এলাকাবাসী ও থানা সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৮ জুন) বনগ্রাম পশ্চিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বেড়া পৌর আওয়ামী লীগ আয়োজিত দুই নং ওয়ার্ড কমিটি গঠন নিয়ে কাউন্সিলের আয়োজন করা হয়। কাউন্সিলে আলোচনায় সভাপতি পদে মিজানুর রহমান নান্না ও মানিক মিয়ার নাম প্রস্তাব করেন স্ব স্ব প্রার্থীর সমর্থক। দুই পক্ষের সমর্থকরা প্রার্থীর নাম উচ্চারণ করেন স্লোগান ও মিছিল করেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার সময় অবস্থা বেগতিক দেখে নেতৃবৃন্দ সভাপতি নির্বাচিত না করে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দে সমন্বয়ে পরবর্তী সময় নির্ধারণ করে কমিটি গঠনের কথা বলে কাউন্সিল স্থগিত করেন। এ সময় দুই পক্ষের সমর্থকরা প্রার্থীর নাম উচ্চারণ করে স্লোগান ও মিছিল করতে থাকেন। এক পর্যায়ে মিজানুর রহমান নান্নার সমর্থকরা লাঠিসোটা, ইট-পাটকেল নিয়ে মানিক মিয়ার সমর্থকদের ওপর হামলা করেন। এতে বাধা দিলে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। তারা সভামঞ্চের চেয়ার ভাঙচুর করেন। মিজানুর রহমান নান্নার লোকজন মানিক, সানোয়ার, আতোয়ারের বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়।

সভাপতি প্রার্থী মানিক মিয়া জানান, মিজানুর রহমান নান্না বিএনপির সন্ত্রাসীদের কাউন্সিলে এনে পরিকল্পিতভাবে লাঠিসোট, ইট-পাটকেল নিয়ে তার বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। বাড়িতে থাকা মহিলাদের মারপিটসহ ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে। এ সকল অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান তিনি।

আরেক প্রার্থী মিজানুর রহমান নান্না বলেন, আমরা আওয়ামী লীগ পরিবার। ৫ বছর দলের সভাপতির দ্বায়িত্বে রয়েছি, দলকে ভালবাসি। হাইব্রিড আওয়ামী লীগের কারণে দলের মধ্যে বিশৃংখলা হচ্ছে। এ ধরনের ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত। দল যাকে নির্বাচিত করবেন সেটাই মেনে নেব।

বেড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান মানু বলেন, এ ঘটনা সত্যি নিন্দনীয়। আওয়ামী লীগে কোনো সন্ত্রাসীর স্থান নেই।

বেড়া পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হান্নান বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বড় দল। সেখান একাধিক প্রার্থী থাকতে পারে। কিন্তু সংঘর্ষের ঘটনা ঠিক নয়। ঘটনার তদন্ত করে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বেড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিদ মাহমুদ খান বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
error: © স্বত্ব ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর