ঢাকা সোমবার, ০৩ অগাস্ট ২০২০, ০৩:০০ অপরাহ্ন

ওসির বিরুদ্ধে দুর্নীতর অভিযোগ তদন্তে বাধা দেওয়ায় ৪ যুবলীগকর্মী গ্রেফতার

জয়পুরহাট প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত: শনিবার, ৪ জুলাই, ২০২০
ওসি আবু ওবায়েদ

ঘুষ, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ওবায়েদকে শুক্রবার (৩ জুলাই) রাতে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত শুরু হলে, তাতে বাধা সৃষ্টির অভিযোগে আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়কসহ চার যুবলীগ কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার (৪ জুলাই) পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাম কবির এ তথ্য জানান।

গ্রেফতার চার জন হলেন—তিলকপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মেহেদি হাসান দিপু, যুবলীগ কর্মী আরিফুল ইসলাম মানিক, দেলোয়ার হোসেন ও রেজাউল হোসেন মানিক। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটির সদস্য ও পুলিশের বিশেষ শাখার (ডিএসবি) পরিদর্শক কাউছার আলী বাদী হয়ে আক্কেলপুর থানায় মামলা করেছেন।

জয়পুরহাট পুলিশ সুপারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সিরাজুল ইসলাম পুলিশ সুপারের কাছে ওসি আবু ওবায়েদের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও ঘুষ দাবির লিখিত আভিযোগ করেন। এছাড়া বিভিন্ন সূত্রে ওসি ওবায়েদের নানা অপকর্মের অভিযোগও যায় এসপি’র কাছে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আব্দুস সালামকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে তদন্তের দায়িত্ব দেন পুলিশ সুপার। দলের অপর সদস্যরা হলেন—অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর হেড কোয়ার্টার) মো.সাজ্জাদ হোসেন ও পুলিশের বিশেষ শাখার (ডিএসবি) পরিদর্শক কাউছার আলী।

তদন্ত দল শুক্রবার দুপুরে তিলকপুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে অভিযোগের বাদী ও সাক্ষীদের ডেকে নিয়ে তদন্ত শুরু করলে সাক্ষীদের প্রকাশ্যে বাধা ও হত্যার হুমকি দিয়ে তদন্ত কাজে বিঘ্ন সৃষ্টি করে তিলকপুর ইউনিয়ন যুবলীগের ওই চার কর্মী। এ সময় তদন্ত দলের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুদস সালামের নির্দেশে তাদের আটক করে আক্কেলপুর থানায় মামলা করা হয়।

ওই চার যুবলীগ কর্মী ওসি ওবায়েদের সিন্ডিকেট দলের সক্রিয় সদস্য বলে স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

তদন্তে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় শুক্রবার রাতেই ওসি ওবায়েদকে থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়। পরে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সেলিম মালিককে ওসির দায়িত্ব অর্পণ করা হলে তিনি দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন।

অভিযোগে জানা গেছে, আক্কেলপুর থানায় যোগদান করার পর থেকে আবু ওবায়েদ স্থানীয় ক্ষমতাসীন চক্রের সঙ্গে সিন্ডিকেট গড়ে অবাধে ঘুষ, দুনীতি ও নানা অপকর্ম চালিয়ে অঢেল টাকা কামিয়েছেন। নওগাঁর মহাদেবপুর এলাকার ওসমান অ্যাগ্রো লিমিটেড এর ব্যবস্থাপক রঞ্জন কুমার অভিযোগ করেন, গত দু’দিন আগে আক্কেলপুর বাজারের ওপর দিয়ে ধান বোঝায় ট্রাক আসার সময় দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় একজন মোটরসাইকেল আরোহী আহত হন। এ ঘটনায় ওসি আবু ওবায়েদ তাদের ধান বোঝায় তিনটি ট্রাক জব্দ করে ১৫ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে ছেড়ে দিয়েছেন।

তিলকপুরের একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করেন, পুলিশ সুপারের কাছে ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ করায় মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে তিন যুবককে ১৪ দিন জেল খাটিয়েছেন ওসি ওবায়েদ। পরে ওই মামলার তিন জন সাক্ষী আসামিদের পক্ষে আদালতে এফিডেভিড করে ওসির ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সাক্ষ্যও দিয়েছেন।

ওসির দায়িত্বরত আক্কেলপুর থানার পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) সেলিম মালিক বলেন, ‘শুক্রবার তিলকপুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে প্রত্যাহার করা ওসি ওবায়েদের বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগের তদন্ত শুরু হলে, সেখানে স্থানীয় চার যুবলীগ কর্মী সাক্ষীদের প্রকাশ্যে বাধা দেন। এতে তদন্ত কাজের বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ায় তাদের গ্রেফতার করা হয়। রাতে ওসি আবু ওবায়েদকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়।’

এসপি মোহাম্মদ সালাম বলেন, ‘পুলিশ সদস্যদের কোনও অনিয়ম-দুর্নীতি সহ্য করা হবে না। আমি ক্লিন ইমেজের মানুষ। কাজেই জেলার পুলিশ বিভাগকে আমি সবসময় ক্লিন রাখতে চাই। আক্কেলপুর থানার ওসির বিরুদ্ধে অনিয়ম ও বিভিন্ন অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাকে  শুক্রবার রাতে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।’

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২০
 
themebaishwardin3435666