ঢাকা বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪৩ পূর্বাহ্ন

কম্বল নিয়ে গ্রামে গ্রামে ছুটছেন ঈশ্বরদীর ইউএনও

রিয়াদ ইসলাম
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৯
কম্বল নিয়ে গ্রামে গ্রামে ছুটছেন ঈশ্বরদীর ইউএনও।

প্রচণ্ড শীতে কাতর হয়ে পড়েছেন জনপদের মানুষ। টানা ঠাণ্ডায় শিশু ও বৃদ্ধরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। হতদরিদ্ররা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। গরম কাপড়ের অভাবে তাদের এক মাত্র ভরসা আগুন। সামান্য গরম কাপড় কিংবা কম্বল পেলে খুশী তারা।

ঈশ্বরদী উপজেলায় শীতের তীব্রতা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। সকাল থেকে সূর্যর দেখা নেই। পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিহাব রায়হান জিপে শীতবস্ত্র বোঝায় করে গ্রামে গ্রামে ছুটছেন। গভীর রাতে কম্বল হাতে তাকে দেখে হতভম্ব হয়ে পড়ছেন সাধারণ মানুষ।

সম্প্রতি গভীর রাতে শীতবস্ত্র বোঝায় করা একটি জীপ দাশুড়িয়া ইউনিয়নের গুচ্ছ গ্রামে দাঁড়ায়। তখনো একটি দোকান খোলা। জিপ থেকে হাসি মুখে নেমে আসে এক ব্যক্তি। তাকে দেখে অবাক তারা। কয়েক জনের গায়ে গরম কাপড় নেই। আগুনের আঁচে দাড়িয়ে ছিলেন তারা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিজে হাতে তাদের গায়ে কম্বল জাড়িয়ে দিলেন।

পাশের গ্রামের নাম গুচ্ছ। এ গ্রামের বেশির ভাগ মানুষ নিম্নআয়ে সংসার নির্বাহ করেন। তখন গ্রামের অধিকাংশ মানুষই ঘুমিয়ে পড়েছিলেন।

ঘরের সামনে শীতবস্ত্র হাতে ইউএনওকে দেখে হতবাক হয়ে পড়েন তারা। বাড়ি বাড়ি ঘুরে হতদরিদ্র মানুষগুলোর হাতে কম্বল তুলে দেন তিনি।

কথা হয় দুলাল বিশ্বাসের বৃদ্ধা স্ত্রী আদুরির সঙ্গে। ঘরের মেঝেতে ঘুমিয়ে ছিলেন তিনি। ইউএনও তার গায়ে একটি কম্বল জড়িয়ে দিলেন। খুশীতে কেঁদে দিলেন ওই বৃদ্ধা।

ইউএনও মানে কি, জানা নেই তার। সে জানায়, শীতে ঘুম আসছিল না। কে যেন আমার গায়ে কম্বল জড়িয়ে দিল। এখন ভাল লাগছে তার। ৫/৬ বছর আগে সরকারের দেয়া একটা কম্বলই তার সম্বল ছিল।

ছোট্ট কুটির বয়স মাত্র ৬। ঘুম ভেঙ্গে গেছে তার। সে ছুটে আসে ইউএনওর জিপের কাছে। বৃদ্ধ দাদার জন্য হাত বাড়িয়ে একটি লাল রংয়ের কম্বল চেয়ে নেয় সে। গোটা গ্রাম ঘুরে ঘুরে গভীর রাত পর্যন্ত শীত বস্ত্র বিতরণ করেন ইউএনও।

এ সময় দাশুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বকুল সরদার তাঁর সঙ্গে ছিলেন।  তিনি জানান, প্রতিদিন রাত গভীর হলেই ড্রাইভারকে সঙ্গে নিয়ে গ্রামে গ্রামে ছুটে যাচ্ছেন ইউএনও।

গত কয়েক দিনে সরকারের ত্রাণ ভাণ্ডার থেকে শত শত শীত বস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে বলেও জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: