ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন

মেয়র মিন্টু: কাদা ছোঁড়াছুড়ি করতে চাইনাপ্রকৃত ঘটনা প্রশাসন, জনগণ ও সাংবাদিক সকলেই দেখেছে

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত: বুধবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৯
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু ।

বিজয় দিবসের দিনে হামলা প্রসংগে ঈশ্বরদী পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু বলেছেন, কাদা ছোঁড়াছুড়ি করতে চাইনা প্রকৃত ঘটনা প্রশাসন, জনগণ ও সাংবাদিক সকলেই দেখেছে।

বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) সকালে পৌরসভায় আয়োজিত এক জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে মেয়র মিন্টু বলেন, বিজয় দিবসের র‌্যালিকে কেন্দ্র করে সংঘঠিত সত্য বাস্তব ঘটনা আজ সাংবাদিকদের মাধ্যমে পৌরবাসীকে জানাতে চাই। গেল ৫ ডিসেম্বর সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী পৌর পরিষদের সভায় আপামর পৌরবাসীকে নিয়ে বিজয় র‌্যালি অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কাউন্সিলর ও পৌর পরিষদ এই র‌্যালিতে বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার নারী-পুরুষের সমাগম ঘটানোর সিদ্ধন্ত গ্রহন করে। এজন্য সামাজিক,সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে কার্ড বিতরণ এবং সর্বত্র মাইকিং করে সকলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

আমাদের প্রিয় নেতা ও অভিভাবক পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক মন্ত্রী, ভাষা সৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শামসুর রহমান শরীফ এমপি মহোদয় অসুস্থতার কারণে র‌্যালি উদ্বোধনের জন্য তাঁরই সহধর্মিনী মিসেস কমরুন্নাহার শরীফকে আমন্ত্রণ জানালে তিনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ গ্রহন করতে সদয় সম্মতি প্রকাশ করেন।

মেয়র বলেন, এই অবস্থায় সকল প্রস্তুতি যখন সম্পন্ন, তখন আগের রাতে থানার ওসি সাহেব বলেন, একই সময়ে আরও একটি র‌্যালি হবে। তাই সময় এগিয়ে আনতে হবে। দুষ্টু লোকদের যাতে কোন সুযোগ তৈরী না হয় এজন্য পূর্ব নির্ধারিত সময় কিছুটা এগিয়েও আনা হয়। অথচ র‌্যালি শুরু হওয়ার আগেই সকাল ৯টার পর আলোবাগ মোড়, পোষ্ট অফিস মোড়, আকবরের মোড়সহ বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে সংবাদ আসতে শুরু করে র‌্যালিতে অংশ নিতে আসা লোকদের উপর হামলা হয়েছে। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জুবায়ের বিশ্বাস, আবু সাঈদ, সাবেক যুবলীগ নেতা মতিন, মতলেবসহ আরও অনেকের উপর হামলা চালিয়ে আহত করা হয়েছে। জুবায়ের বাবা মুক্তিযোদ্ধা আতিয়ার রহমান বিশ্বাসকে লাঞ্ছিত, উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নূরুজ্জামান বিশ্বাসের বাড়িতে হামলার মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

কাউন্সিলররা বলেছে, মহিলাদেরও লাঞ্ছিত করা হয়েছে। আহত হওয়ার তালিকা অনেক বড়ো। এসব শুনে আমি হতবাক হয়ে যাই। কাউন্সিলরদের বলা হয়, এলাকাবসীদের নিয়ে নয় আপুনি একা র‌্যালিতে যাবেন। আহত ২জন এখনও রাজশাহীতে চিকিৎসা গ্রহন করছে।

তিনি আরও বলেন, রক্তাক্ত অবস্থাতেই অনেকেই শেষ পর্যন্ত আমার র‌্যালিতে অংশগ্রহন করেছে। প্রশাসনের কাছে সহযোগীতা চেয়েছিলাম, তাঁরা করেছেন। সহযোগীতা না করলে হয়তো আরও বড়ো ধরণের সহিংসতা ঘটতে পারতো। এই র‌্যালি ছিল পৌরসভার র‌্যালি। দলের নয়। মিন্টু আরো বলেন, জেলা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে সকালে পুষ্পস্তবক অর্পণ থেকে শুরু করে দলীয় সকল কর্মকান্ডে অংশ নেয়ার পরই পৌরসভার র‌্যালির আয়োজন করা হয়। আর উপজেলা আওয়ামী লীগ যখন বিজয় র‌্যালির কর্মসূচি দিয়েছে, তখন পৌর আওয়ামী লীগের পক্ষ হতে কোন কর্মসূচি দেয়া হয়নি বলে তিনি জানান।

পোষ্ট অফিস মোড়ে যুবলীগের অফিসে হামলার অভিযোগ প্রসংগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মেয়র মিনটু বলেন, এটি সম্পূর্ণই মিথ্যাচার। কারা হামলা চালিয়েছে এ প্রসংগে তিনি বলেন, কাদা ছোঁড়াছুড়ি করতে চাইনা প্রকৃত ঘটনা প্রশাসন, জনগণ ও সাংবাদিক সকলেই দেখেছেযে কারা হামলা চালিযেছে। কারা হামলা চালালো সেটা প্রশাসনের তদন্তে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে বলে তিনি জানিয়েছেন। হামলার কারণ প্রসংগে মেয়র বলেন, যারা হামলা চালিয়েছে, তারাই কারণ বলতে পারবেন। তিনি বলেন, এই হামলায় স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তির ইন্ধন থাকতে পারে।

আগামীতে সংসদ সদস্য প্রার্থিতা প্রসংগে মিন্টু বলেন, আমি জননেত্রী শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ করি। তিনি আমাকে যেখানে জনগণের কামলা (সেবক) দেয়ার জন্য বলবেন, সেখানেই কামলা দিব।

জননেতা শামসুর রহমান শরীফ এমপি মহোদয়ের অসুস্থতায় কেউ কেই আনন্দ উল্লাস করে মিষ্টি এবং গরু জবাই করে খাওয়ার অভিযোগ প্রসংগে মেয়র মিনটু ঘৃণা প্রকাশ করে বলেন, একজন মানুষের অসুস্থতায় এধরণের কর্মকান্ড ধর্মীয়ভাবে চরম অপরাধমূলক।

সংবাদ সম্মেলনে, কাউন্সিলর ইউসুফ আলী প্রধান, ফিরোজা বেগম, আমিরুল ইসলাম, ফরিদা ইয়াসমিন, রহিমা খাতুন, আবুল হাসেম, মনিরুল ইসলাম সাবু প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666