ঢাকা শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন

সম্প্রীতির সেতুবন্ধনের অঙ্গিকারে ঈশ্বরদীতে চলছে বৈশাখ বরণের প্রস্তুতি

ঈশ্বরদীনিউজ২৪.নেট, প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: বুধবার, ১০ এপ্রিল, ২০১৯
আর ক’দিন পরই বাংলা নববর্ষ। নববর্ষ উপলক্ষে বছরের শেষ দিন ও প্রথম দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় আয়োজন করা হবে নানা অনুষ্ঠানের। তাই পুরনো বছরকে বিদায়ের পাশাপাশি চলছে নতুন বছরকে বরণের প্রস্তুতি। ঈশ্বরদী ইক্ষু গবেষণা উচ্চবিদ্যালয় থেকে বর্ষবরণের প্রস্তুতির ছবিটি তুলেছেন মেহেদী হাসান তুষার।

নিজস্ব প্রতিবেদন: ঈশ্বরদীতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে ১লা বৈশাখ বরণের নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। আশা নতুনের এ আলোকচ্ছটায় আবার নবসাজে সাজবে সবুজ-শ্যামল বাংলাদেশ। প্রতিটি সংগঠনের সবাই ব্যস্ত গান, নাচ, কবিতা আবৃত্তি ও নাটকে নিজস্বতা ধরে রাখতে। তাই চলছে মহড়া। সকাল থেকে রাত অবধি মহাব্যস্ত থাকছে কর্মীরা।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরিষদ চত্বর থেকে রোববার (১৪ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৭টায় মঙ্গল শোভাযাত্রা, ঐতিহ্যবাহী বাঙলি খাবার পরিবেশন, সাড়ে ৯টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রীতি সাঁতার, ৪টায় মেহেদী রঙ, সাপুড়ে বীন, যাদু সার্কাস, জ্যোতিষ দর্শন, খাওন দাওন (পাঁচ মিশালী), ফানুষ উড্ডয়ন ও পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে । 

বৈশাখী উৎসবকে বরণ করে নিতে অধীর আগ্রহের কথা জানালেন সরকারি সাঁড়া মাড়োয়ারী মডেল স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেনীর বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী সাদিয়া খানম। তিনি বলেন, বাঙালি তাঁর নিজস্ব জাতি সত্ত্বার অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখার জন্য যতগুলো উৎসব পালন করে তার মধ্যে বৈশাখ বরণ বা বাংলা সনকে বরণ অন্যতম। বৈশাখী উৎসবের মাধ্যমে বাঙালিদের মধ্যে একটি মেল বন্ধনের সূতিকাগার রচিত হয়। সকল ভেদাভেদ ভুলে বাঙালিরা তাদের প্রকৃত সংস্কৃতিকে লালন এবং ধারণ করার শপথে অগ্রগামী হবে।

ঈশ্বরদী ইক্ষু গবেষণা উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফারজানা আনোয়ার বুধবার (১০ এপ্রিল) বিকেলে ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোরকে বলেন, বৈশাখ বরণে শোভাযাত্রায় বহন করার জন্য তৈরি করা হচ্ছে পেঁচা, ফুল ও পাখিসহ বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিকৃতি। এসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে ঈশ্বরদীর হারানো সংস্কৃতি, ঐতিহ্য বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হবে। এতে অংশ নেবেন বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ এ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

সংবাদকর্মী মাহাবুবুল হক দুদু বলেন, উপজেলা প্রশাসন এবার যে ব্যাপক পরিসরে বৈশাখ উদযাপন করতে যাচ্ছে তা প্রশংসার দাবিদার। আমরা কৃতজ্ঞ যে, বাংলার ঐতিহ্যগুলো তুলে ধরতে শিক্ষার্থীরা অনেক কষ্ট করছে।

চরনিকেতন কাব্যমঞ্চের পরিচালক মজিদ মাহমুদ জানান, বর্ষবরণে তাঁরা তিনদিনের চর নিকেতন বৈশাখী উৎসব ও বাংলা সাহিত্য সম্মেলনের আয়োজন করেছেন। উপজেলার চর গড়গড়ি গ্রামে বৈশাখী উৎসবে থাকবে শোভাযাত্রা, লাঠি খেলা,  লোকজ ও বাউল সঙ্গীত পরিবেশন। অনুষ্ঠানের পাশাপাশি কবিতা-পাঠ, বিষয়ভিত্তিক সেমিনার, সন্মাননা ও পুরস্কার বিতরণ। এতে দেশ-বিদেশের কবি, লেখক, আলোচক ও সংগীত শিল্পী অংশগ্রহন করবেন।

ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আহাম্মদ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, এ উপজেলা ইতিহাস-ঐতিহ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আমরা চেষ্টা করছি এ জনপদের উৎসবপ্রবণ মানুষদের সহযোগিতায় সে ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে বাংলার মূলধারার সংস্কৃতিকে তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

এদিকে বর্ষবরণ উপলক্ষে ইতোমধ্যে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থার প্রস্তুতি নিয়েছেন পুলিশ প্রশাসন। ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: জহুরুল হক বলেন, বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষকে অনুষ্ঠানের নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

এছাড়া নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবকের মাধ্যমে অনুষ্ঠানস্থলের সার্বিক শৃঙ্খলা বজায় রাখার পাশাপাশি প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিতেও তাদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: