ঢাকা শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন

ঈশ্বরদী ইপিজেডে নির্যাতন ও দুর্নীতির অভিযোগে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত: বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯
ফাইল ছবি

ঈশ্বরদী রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকার (ইপিজেডে) এমজিএল-১ ও এমজিএল-২ নামে একটি নকল চুল তৈরির কারখানার দোভাষী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শ্রমিক নির্যাতন, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে শত শত শ্রমিক-কর্মচারী বিক্ষোভ করছেন।

বুধবার (২৩ অক্টোবর) সকাল থেকে তারা কারখানার উৎপাদন ও অফিসের সব কার্যক্রম বন্ধ করে বিক্ষোভে নেমে পড়েন।

সরেজমিন ঘুরে শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জিয়াউর রহমান নামে এক দোভাষীর দুর্নীতির বিরুদ্ধে তারা এ বিক্ষোভ করছেন। দোভাষীর সুবিধা নিয়ে কারখানা-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে ভুল তথ্য জাপানি কর্মকর্তাদের কাছে তুলে ধরে দুর্নীতি-অনিয়ম করছেন তিনি। এমনকি তার অনিয়মের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কারখানায় শ্রমিকদের নির্যাতন করেন তিনি। এছাড়া নারী শ্রমিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

আন্দোলনরত শ্রমিকেরা জানান, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলায় বুধবার সকালে এক শ্রমিকের সঙ্গে অন্যায় আচরণ করা হয়। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীরা কাজ বন্ধ করে অভিযুক্ত জিয়াউরের অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন।

এক পর্যায়ে অভিযুক্ত জিয়াউর মারধরের শিকারও হয়েছেন বলে জানা গেছে।

এ দিকে, শ্রমিকদের বিক্ষোভের খবর পেয়ে পাকশী ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালায়। পরে ঈশ্বরদী ইপিজেডের সহকারী সুরক্ষা কর্মকর্তা মাকসুদুর রহমান, পুলিশ, বিক্ষুব্ধ শ্রমিক ও এমজিএলর কর্মকর্তারা বৈঠক করেন।

এ বিষয়ে ঈশ্বরদী ইপিজেডের মহাব্যবস্থাপক আব্দুল আলীম জানান, ‘মারধরের শিকার দোভাষী কর্মকর্তাকে ইপিজেড হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শ্রমিকদের সঙ্গে একটি ঘটনার সূত্রেই এমনটা ঘটেছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।’ এ সময় শ্রমিকদের দাবির ব্যাপারে তিনি বলেন, তাদের পক্ষ থেকে দ্রুত সমস্যাটি সমাধানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২৩ সেপ্টেম্বর দোভাষী জিয়াউর রহমান, সহকারী ব্যবস্থাপক প্রশাসন লাবনী ও ব্যবস্থাপক প্রশাসন মাহবুব আলীর নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে শ্রমিকেরা আন্দোলন করেছিলেন।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: