ঢাকা শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০২:৩৬ পূর্বাহ্ন

রূপপুর প্রকল্পে দুর্নীতিতে ৩৪ কর্মকর্তার সম্পৃক্ততা আছে: গণপূর্তমন্ত্রী

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০১৯
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। সচিবালয়, ঢাকা, ২৪ জুলাই। ছবি: বাসস

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পে আসবাব কেনার ক্ষেত্রে দুর্নীতি ও অনিয়ম খতিয়ে দেখার জন্য গঠিত তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তদন্তে প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ৩৪ জন কর্মকর্তার দুর্নীতি ও অনিয়মের সম্পৃক্ততা পেয়েছে কমিটি।

বুধবার (২৪ জুলাই) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে এ তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেন, অভিযুক্তদের সাময়িক বরখাস্তসহ বিভাগীয় মামলা দায়ের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ঘটনা তদন্তে দুটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছিল জানিয়ে গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, দুটি কমিটির প্রতিবেদন পর্যালোচনায় আমাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে যে, ৩৪ জন কর্মকর্তা বা ব্যক্তি এ ঘটনায় নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত। এর মধ্যে ৩০ জন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের। চারজন বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিভাগের। তাদের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন, আমরা সেই মন্ত্রণালয়কে লিখেছি।

শ ম রেজাউল করিম জানান, এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অনিয়ম করে ৩৬ কোটি ৪০ লাখ ৯ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এই টাকা ফেরত নেওয়া হবে। তাদের এখনো অনেক বিল পাওনা আছে, সেখান থেকে এই টাকা কেটে রাখা হবে।

গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, আর আমাদের মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ দপ্তরের কর্মকর্তাদের মধ্যে কয়েকজন কর্মকর্তা ইতিমধ্যে অবসরে গেছেন। তাদের ক্ষেত্রে ভিন্ন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যেহেতু তারা দায়িত্বে নেই। এ জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট বিভাগকে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বলেছি।

রেজাউল করিম বলেন, যারা চাকরিতে আছেন গুরুতর অভিযোগের কারণে তাদের ১৬ জনকে সাময়িক বরখাস্তসহ বিভাগীয় মামলা রুজুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। অপর ১০ জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিভাগীয় মামলার পর তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: