ঢাকা বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪৮ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীতে এবার জাঁকজমক দুর্গাপূজা

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: সোমবার, ১১ অক্টোবর, ২০২১
মণ্ডপ সাজাতে প্যান্ডেলের কাজও চলছে সমানতালে। ছবি: ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর

করোনা মহামারির কারণে গত বছর সারা দেশের মতো ঈশ্বরদীতে দুর্গাপূজার আয়োজন ছিল সীমিত। তবে এবার সংক্রমণের প্রকোপ কমে আসায় চিরচেনা রূপ ফিরে পেয়েছে শারদীয় এই উৎসব। আজ ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে জাঁকজমকভাবে শুরু হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় আয়োজনটি।

উপজেলা পূজা উদ্যাপন কমিটি সূত্রে জানা যায়, এবার উপজেলায় ৩০টি মন্দিরে দুর্গা উৎসব পালন করা হচ্ছে। উৎসব ঘিরে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা প্রফুল্ল ও আনন্দময় সময় পার করছেন।

আজ রোববার দুপুরে বিভিন্ন পূজামণ্ডপ ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি মণ্ডপের সামনে শামিয়ানা টাঙানো হয়েছে। উৎসবকে কেন্দ্র করে মেলার জন্য দোকান সাজাতে ব্যস্ত সময় পার করছিলেন ব্যবসায়ীরা। প্রতিমা শিল্পীরাও শেষ সময়ের কাজ নিয়ে তোড়জোড় করছিলেন।

সাঁড়া ইউনিয়নের আমবাড়িয়া দুর্গা মন্দিরে তুলির আঁচড়ে প্রতিমা রাঙাতে ব্যস্ত ছিলেন কারিগর সৌরভ রায়। তখন তিনি বলেছিলেন, ‘প্রতিমা তৈরির সব কাজ শেষ। বাড়িতে ফিরে স্ত্রী, সন্তানদের নিয়ে তিনিও ধুমধামে পূজা উদ্যাপন করবেন’।

রেলগেট মন্দিরের সামনে খেলার দোকান সাজাতে ব্যস্ত থাকা ওসমান আলী জানান, পূজায় অনেক ছেলেমেয়ে আসবে, খেলনা কিনবে। তাই তিনি দোকান সাজাচ্ছিলেন।

ঈশ্বরদী বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী রাকিবুল বলেন, ‘করোনার লকডাউনের কারণে গেল ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহায় ব্যবসা করতে পারিনি। এখন লকডাউন নেই। পূজায় ভালো বিক্রি হচ্ছে। হয়তো করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারব।’

কথা হয় নতুন পোশাক কিনতে আসা লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নে কামালপুর গ্রামের প্রকাশ রায়ের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘বছরে একবার এ উৎসব আসে। গেলবার করোনা আর লকডাউনের কারণে পূজায় ঘুরতে পারিনি, ঘরেই অবরুদ্ধ হয়ে ছিলাম। এবার আর তা হবে না। করোনা নেই। বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে ঘরে প্রতিমা দেখে বেড়াতে পারব। তাই নতুন জামা কিনতে এসেছি।’

দুর্গাপূজা উৎসব উপলক্ষে প্রতিটি মন্দিরের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় ৫০০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ সাহায্য পূজা উদযাপনে সহায়ক হবে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পি এম ইমরুল কায়েস।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ‘মন্দিরগুলোতে যাতে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেদিকে খেয়াল রেখে সর্বোচ্চ নজরদারি করা হচ্ছে। উৎসবের সময় সর্বদা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে থাকবে।’

উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুলিন চক্রবর্তী বলেন, ‘দেবীর বোধনের মধ্যে দিয়ে উৎসব এবং আনন্দমুখর পরিবেশে দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে উপজেলায়।’

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666