ঢাকা বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪২ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীতে পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ২৫ টাকা, বিপাকে নিম্নআয়ের মানুষজন

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: বুধবার, ৬ অক্টোবর, ২০২১
ঈশ্বরদীতে ছয় দিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ২০ থেকে ২৫ টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে।

ঈশ্বরদীতে হঠাৎ বেড়ে গেছে পেঁয়াজের দাম। ছয় দিনে খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ২০ থেকে ২৫ টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে। আজ মঙ্গলবার সেই দাম বেড়ে হয়েছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। এতে নিম্ন আয়ের মানুষেরা বিপাকে পড়েছেন।

ঈশ্বরদীর খুচরা ও পাইকারি বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বুধবার খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল সর্বোচ্চ ৪০ টাকায়। আজ সেই দাম বেড়ে হয়েছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। আর পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ীরা বলেন, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানিতে কোনো প্রতিবন্ধকতা তৈরি হলে বাজারেও অস্থিরতা তৈরি হয়। গত সপ্তাহ থেকে বাজারে পেঁয়াজ কম আসছে। পাশাপাশি পাবনার পাইকারি মোকামে স্থানীয় পেঁয়াজের সরবরাহ কমে গেছে। এসব কারণে বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাচ্ছে। সপ্তাহের ব্যবধানে এখানে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ২০ থেকে ২৫ টাকা।

ব্যবসায়ী ছগির হোসেন বলেন, বাজারে পেঁয়াজ কম আসছে। সে জন্য সব জাতের পেঁয়াজের দাম হঠাৎ বেড়ে গেছে।

ফরহাদ হোসেন নামে এক ক্রেতা বলেন, পেঁয়াজের দামের কোনো ঠিকঠিকানা নেই। সকালে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৬০ টাকা বিক্রি হলেও দুপুরে দাম হাঁকাচ্ছে ৬৫ টাকা। আবার দোকানভেদে ৬০ টাকাও দাম চাওয়া হচ্ছে।

দড়িনারিচা এলাকার বাসিন্দা শান্তনা বেগম বলেন, গত সপ্তাহে পাড়ার দোকান থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজ সকালে আবার কিনতে গেলে দোকানদার প্রতি কেজির দাম রেখেছেন ৬০ টাকা।

হাজিরহাটের পেঁয়াজের পাইকারি মোকামের ব্যবসায়ী কামাল হোসেন মুঠোফোনে বলেন, প্রতিদিনই পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় তাঁরা বাধ্য হয়ে বেশি দামে বিক্রি করছেন।

ব্যবসায়ী আরও বলেন, কয়েক দিন যাবৎ এলসি করা পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে। গত সোমবার এক মণ দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করেছি ১ হাজার ১০০ টাকায়। আজ তা বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৩০০ টাকায়।

ঈশ্বরদী বাজারে খুচরা ব্যবসায়ী আজাদ হোসেন বলেন, প্রতিদিনই পেঁয়াজ কেজিতে পাঁচ-ছয় করে দাম টাকা করে বাড়ছে। দাম আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হঠাৎ করে দাম বেড়ে যাওয়ায় ক্রেতারা আমাদের ওপর ভীষণ রেগে যাচ্ছেন।

ঈশ্বরদীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহদী ইসলাম বলেন, অধিক মুনাফার জন্য বাজারে যাতে কেউ কৃত্রিম সংকট তৈরি করতে না পারেন সে জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে তৎপরতা চালানো হবে।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666