ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীতে পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
হাটে সামাজিক দূরত্ব নেই। মাস্ক পরছেন না বেশির ভাগ ক্রেতা-বিক্রেতা।

উত্তরাঞ্চলের অন্যতম বৃহৎ ঈশ্বরদীর ‘অরনকোলা পশু হাটে’ বেশির ভাগ ক্রেতা-বিক্রেতা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। তাঁদের মুখে মাস্ক নেই। সামাজিক দূরত্বও উধাও। যেন করোনার সংক্রমণের কথা ভুলেই গেছেন সবাই।

কোরবানি কাছে আসছে, হাটে ক্রেতা-বিক্রেতারও ভিড় বাড়ছে। পশুর দাম তুলনামূলক কম থাকলেও বেচাকেনা তেমন নেই বলে দাবি ব্যবসায়ীদের।

মঙ্গলবার (২১ জুলাই) অরনকোলা পশু হাটে গিয়ে দেখা যায়, ক্রেতা-বিক্রেতাদের প্রচণ্ড ভিড়। সামাজিক দূরত্বের বালাই নেই। অনেকেরই মুখে মাস্ক নেই। হাতে গোনা দু-একজনের মাস্ক থাকলেও কথা বলার সুবিধার্থে মুখ থেকে তা নামিয়ে রেখেছেন গলায়। হাট কমিটির পক্ষ থেকে বিনামূল্যে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে মাস্ক বিতরণ করছেন। এছাড়াও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা মাস্ক পরিধান করা সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার কথা বলে মাইকিং করছে একটু পরপর। হাত ধোয়া ও স্যানিটাইজারের ব্যবহারের ব্যবস্থা আছে। তবে পশু হাটে আসা ক্রেতা বিক্রেতা কেউই আইন মানছে না। যত্রতত্র একসঙ্গে অনেককে জটলা করতে দেখা গেছে। মাস্ক না পরার বিষয়ে জানতে চাইলে কয়েকজন তড়িঘড়ি করে পকেট থেকে মাস্ক বের করেন।

গরু কিনতে আসা উপজেলার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবদুল মালেক বলেন, উপজেলার সবচেয়ে বড় পশুর হাট এটি। সপ্তাহে মঙ্গলবার হাট বসে। দূরদূরান্ত থেকে মানুষ এই হাটে কেনাবেচা করতে আসেন। তাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কোনো সুযোগ নেই।

পার্শ্ববর্তী লালপুর থেকে গরু বিক্রি করতে এসেছিলেনন আব্দুল কাদের হাওলাদার (৫১)। তাঁর মুখে মাস্ক নেই। এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, পকেটে মাস্ক আছে।

আওতাপাড়ার থেকে আসেন মো. আজিজুল হক (৩৯)। তাঁর মুখেও মাস্ক নেই। গরু টানাটানি করা নিয়েই ব্যস্ত। মুখে মাস্ক নেই কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আল্লাহর রহমতে আমাদের কিছুই হবে না।’ পরে পকেট থেকে মাস্ক বের করে মুখে পরেন।

হাটের ইজারাদার রুনু মন্ডল বলেন, সবাইকে স্বাস্থ্যবিধির কথা বলা আছে। কিন্তু মানুষ তা মানছে না। আসলে গ্রামের মানুষ সচেতন নয়। তাই স্বাস্থ্যবিধি রক্ষা করা যাচ্ছে না।

ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিহাব রায়হান বলেন, উপজেলার হাট ইজারাদারদের নিয়ে মঙ্গলবার একটি বৈঠক করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কোরবানির পশু বেচাকেনার জন্য সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যদি ব্যতিক্রম ঘটে, তবে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে প্রয়োজনে হাট বন্ধ করে দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666