ঢাকা রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৭:১৮ অপরাহ্ন

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ২

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
পুলিশি হেফাজতে দুই প্রতারণা।

ঈশ্বরদী রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকরি দেওয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে প্রতারক চক্রের দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা নিজেদের সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে চাকরি প্রত্যাশীদের সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আসছিলেন।

রোবাবার (১২ জুলাই) বিকেলে উপজেলার পাকশী ইউনিয়ন থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, নাটোরের লালপুর উপজেলার বৈদ্যনাথপুর গ্রামের আফসার আলীর ছেলে হাসান আলী (৩১) এবং ঈশ্বরদী পৌর এলাকার পূর্ব টেংরী বকুলের মোড়ের মনিরুজ্জামানের ছেলে জাকির হোসেন (২৫)।

এসময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ভুয়া নিয়োগপত্র, চাকরি প্রার্থীদের সিভি, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও প্রকল্পে প্রবেশের ভুয়া গেট পাশ জব্দ করা হয়।

থানা সুত্রে জানা যায়, গ্রেফতার হওয়া এ চক্রের সদস্য সংঘবদ্ধভাবে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা করে আসছিল। এরমধ্যে হাসান আলী নিজেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কোন সময় নাটোর-১ আসনের সাবেক এমপি ও নাটোর জেলা আ.লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদের চাচাতো ভাই বলে পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে থাকেন। চলতি বছর প্রায় ৫০-৬০ জনের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে মোটা অংকের টাকা। টার্গেট ব্যক্তিকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলার জন্য এ চক্রের সদস্যরা দু’টি গ্রুপে ভাগ হয়ে কাজ করতেন। এ চক্রের কাছে প্রতারিত হয়ে কয়েকজন চাকরিপ্রত্যাশী বেকার যুবক থানায় অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অনুসন্ধান করতে গিয়ে এ চক্রের সন্ধান পায় পুলিশ। এরপর ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: ফিরোজ কবিরের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল চক্রটির পিছু নেয়।

আরও জানা গেছে, প্রাথমিক পর্যায়ে কাজ করে তাদের প্রমোটর টিম, যাদের দায়িত্ব চাকরিপ্রার্থী সংগ্রহ করা। এ গ্রুপের সদস্যরা মাঠপর্যায়ে কাজ করে। তাদের লক্ষ্য থাকে বেকারদের টার্গেট করে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকরির প্রলোভন দেখানো। তারা বিভিন্ন চাকরি দেওয়ার কথা বলে প্রার্থীদের কাছ থেকে সিভি, শিক্ষাগত যোগ্যতার ফটোকপি, জন্মসনদ, নাগরিকত্বের সনদ ও পাসপোর্ট সাইজের ছবি সংগ্রহ করে।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: ফিরোজ কবির বলেন, ভুক্তভোগীদের অভিযোগের পরে আমরা এ অভিযান পরিচালনা করেছি। এ চক্রের সদস্যরা দীর্ঘদিন ধরে অনেক মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়ে সর্বশান্ত করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666