ঢাকা শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন

ঈশ্বরদীবাসী মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ, ডেঙ্গু আতঙ্কে উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ৬ মার্চ, ২০২০
ডেঙ্গি থেকে বাঁচতে দিনের বেলায় মশারির ভিতরে শিশুরা।

শীতের বিদায় ঘণ্টা বাজার পরপরই ঈশ্বরদীতে শুরু হতে থাকে মশার উৎপাত। আর গত দুই দিন সামান্য বৃষ্টিতে এর মাত্রা আরও ছাড়িয়ে গেছে। সঙ্গে সঙ্গে শহরবাসীর মনে ছড়িয়েছে পুরোনো ডেঙ্গু আতঙ্কও। তবে, ঈশ্বরদী পৌরসভা থেকে বলা হয়েছে, এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংসসহ মশন নিধন কার্যক্রম জোরদার করা হচ্ছে।

ঈশ্বরদীর বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিকেল হলেই মশার উৎপাত বাড়ে। কয়েল বা স্প্রে ব্যবহার করলেও মশা যায় না। বাধ্য হয়ে মশারি টাঙাতে হয়। এতে বাসায় চলাফেরায় বাধা সৃষ্টি হয়।

মাহাতাব কলোনী এলাকায় আল আমিন বলেন, ‘সন্ধ্যার পরপরই বাসায় মশার উৎপাত বাড়ে। রাতভর মশা আর ডেঙ্গু আতঙ্কে কাটাতে হয়। মশার স্পে ও কয়েল কোনো কাজে আসে না। ’

আল-আমিনের মতো একই অভিজ্ঞতার কথা জানান মশুরিয়া পাড়ার সাইফুল ইসলাম, শেরশাহ রোডের ইশরাত সুলতানা, শৈলপাড়ার আবুল কালাম, হাসপাতাল রোডের ইদ্রিস আলম, ফতেমোহাম্মদপুর এলাকার আহসান হাবিব।

আহসান হাবিব বলেন, ‘ঈশ্বরদী পৌরসভার কোনো কার্যক্রম চোখে পড়ছে না। যদি তারা ঠিকভাবে কাজ করতো, তাহলে মশার উৎপাত এত বাড়তো না।’

ইশরাত সুলতানা বলেন, ‘মশার উৎপাত বাড়ায় ছেলে-মেয়ে ঠিক মতো পড়ার টেবিলে বসতে পারে না। এতে তাদের অনেক ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে। এভাবে চললে ঈশ্বরদীতে বসবাস করা কঠিন হয়ে যাবে।’

এদিকে, চিকিত্সারা জানিয়েছেন, ডেঙ্গু নির্মূলে শুধু একটি মৌসুম নয়, সারা বছর কাজ করতে হবে। তা না হলে এডিসসহ অন্যান্য মশা থেকে বাঁচা সম্ভব হবে না।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম শামিম বলেন, ‘এডিস মশা প্রতিকূল পরিবেশেও ডিম ছাড়তে পারে। ডিমগুলো অনেক দিন টিকে থাকতে পারে। পানির স্পর্শ পেলেই এগুলো থেকে লার্ভা হয়। এসব নির্মূলে মশক নিধন কার্যক্রম জোরদারসহ অন্যান্য এলাকায় কাজ করতে হবে। ’

পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু বলেন, ‘মশক নিধন কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। এগুলো মনিটরিং করার জন্যও টিম করে দেওয়া হয়েছে।’ মশা নিয়ন্ত্রণে সব ধরনের কার্যক্রম চালানো হবে বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: