ঢাকা মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:২০ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীতে মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি: বিগত জোট সরকারের আমলে দেশ অন্ধকারে ছিল

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: বুধবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী আমতলা মাঠে গণ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের বক্তব্যে দেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, বিগত জোট সরকারের (বিএনপি জোট) আমলে দেশ অন্ধকারে ছিল। এই ১০ বছরে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ অন্ধকার থেকে আলোতে এসেছে। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন খালেদা জিয়া আর তার ছেলে তারেক জিয়া হাওয়া ভবন ও খাওয়া ভবন নিয়ে এতই ব্যস্ত ছিল যে দেশ দুর্নীতিতে কয়েক বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস আর নৈরাজ্য সৃষ্টি করে দেশ অচল করে দিয়েছিল।

বুধবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টায় ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী আমতলা মাঠে মুক্তিযোদ্ধা জনতা সংবর্ধনা কমিটির গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

হানিফ বলেন, আজ দেশের অসহায় মানুষগুলো শান্তিতে আছেন। ২০ বছর আগে অসহায় মা-বোনেরা ছেঁড়া- জোড়াতালি শাড়ি পরে থাকত। এখন কোনো অসহায় মানুষের ছেঁড়া শাড়ি পরে থাকতে দেখা যায় না। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বয়স্ক-অসহায় নারীদের বিভিন্ন ভাতার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার ১৯৭২ সালে বলেছিলেন, বাংলাদেশ একটি ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ হতে যাচ্ছে। সত্তরের দশকে জাস্ট ফ্যালান্ড ও জন পার্কিনসন নামের দুই অর্থনীতিবিদের যৌথভাবে লেখা বাংলাদেশের উন্নয়ন-সম্পর্কিত বিখ্যাত বইটির নাম ছিল বাংলাদেশ : এ টেস্ট কেইস অব ডেভেলপমেন্ট।

আওয়ামী লীগের এ নেতা আরও বলেন, ১৬ মার্চ জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিল বাংলাদেশ সরকারকে আনুষ্ঠানিক পত্রের মাধ্যমে জানিয়েছে যে বাংলাদেশ যেহেতু স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশের ক্যাটাগরিতে উত্তরণের তিনটি পূর্বশর্ত পূরণ করেছে, তাই ২০১৮ সাল থেকে বাংলাদেশের এই উত্তরণপর্ব শুরু হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধা জনতা সংবর্ধনা কমিটির আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট কাজী সদরুল হক সুধার সভাপতিত্বে ও পাবনা জেলা পরিষদের সদস্য সাইফুল আলম বাবু মন্ডলের সঞ্চালনায়, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বহির্বিশ্বে জনমত গঠনে ভূমিকা পালনকারী মো. রবিউল আলম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক উপকমিটির চেয়ারম্যান, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কার্যকরী পরিষদ সদস্য, সাবেক সচিব রশিদুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান বিশ্বাস, পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুল ইসলাম হবিবুল, ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. রশিদুল্লাহ, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নায়েব আলী বিশ্বাস বক্তব্য রাখেন।

উদীচী শিল্পীদের পরিবেশনা।

এর আগে বেলা ১২টায় পাকশী উদীচী শিল্পীদের পরিবেশনায় জাতীয় সংগীত ও গণসংগীতের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। তারপর ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন আগতরা। এরপর অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ ও সম্মাননা স্মারক দেন।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: