ঢাকা রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৭:৩২ পূর্বাহ্ন

রেলের পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী-১ অফিস: এত এত অভিযোগ কর্মকর্তার

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
প্রতীকী ছবি

রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী-১ অফিসে জনবল নিয়োগে অর্থবাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। এ ছাড়া একই অফিসের একাধিক কর্মচারীর বিরুদ্ধে ঠিকাদারি কাজের গোপনীয়তা ফাঁস করে অর্থ আদায়, রেলের অর্থ গত ছয় বছর ধরে জমা না দিয়ে অর্থ তছরুপ, কর্মস্থলে হাজির না থেকেই প্রতি মাসে বেতন তুলে নেওয়াসহ বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতির খবর পাকশী রেলওয়ে অফিসে এখন মানুষের মুখে মুখে।

সংশ্নিষ্ট অফিসের বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, টিএলআর মঞ্জুরিকৃত ১৫ জন ট্রলিম্যান এবং ১২ জন গেট কিপার পদে অস্থায়ীভাবে নিয়োগপ্রাপ্তদের কাছ থেকে এক থেকে দুই লাখ টাকা করে উৎকোচ নেওয়া হয়েছে বলে একাধিক ব্যক্তি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। রেলের কর্মচারীরা জি ৪৮ স্লিপ ভাউচারের যে টাকা জমা দিয়ে থাকেন তা গ্রহণ করা হলেও কয়েক বছর ধরে এই টাকা রেলের ফান্ডে জমা পড়েনি। এ বিষয়ে গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট ইতোমধ্যে বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজারের কাছে জমা দিয়েছে তদন্ত কমিটি। আবার বিভাগীয় প্রকৌশলী-১-এর পার্সোনাল স্টেনো এবং প্রধান সহকারীসহ একাধিক কর্মচারী নিজেদের মধ্যে যোগসাজশ করে রেলের বিভিন্ন ঠিকাদারি কাজের গোপন এস্টিমেট ও রেটকোড তাদের ‘নির্ধারিত’ ঠিকাদারদের কাছে ফাঁস করে দিয়ে অবৈধ উপায়ে লাখ লাখ টাকা গ্রহণ করে বলে অভিযোগ রয়েছে। কর্মকর্তার স্বাক্ষর জাল করে বিল পাস করা, ইনক্রিমেন্ট করার ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর বেতন থেকে বিল কর্তন করে পরিশোধ করার ঘটনাও ঘটেছে, যা এই অফিসের সার্ভিস বইয়ে লিপিবদ্ধ রয়েছে। অফিসে কর্মরত অবস্থায় দু-একজন কর্মচারী ঠিকাদারদের সঙ্গে ব্যাকডেটে ব্যাংক গ্যারান্টি হিসেবে বিডি, সরকারি স্ট্যাম্প বিক্রিসহ গোপনীয় তথ্যও ফাঁস করে দেন টাকার বিনিময়ে। এসব কর্মকর্তার জন্য ডিইএন-১ অফিসের প্রধান করণিক আব্দুস সামাদ সরকার ও স্টেনো মামুন উল করিমের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ জানানো হয়েছে।

পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী-১-এর প্রধান সহকারী আব্দুস সামাদ সরকার বলেন, তদন্ত কমিটি আমাকে দায়ী করলে আমি দায় স্বীকার করে নেব। তবে তিনি একা সব অনিয়মের জন্য দায়ী নন বলে জানান। স্টেনো মামুন উল করিম বলেন, অফিসের কেউ হয়তো আমার কাছ থেকে অবৈধ সুবিধা না পেয়ে এসব অভিযোগ করেছেন। পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে প্রকৌশলী-১ বীরবল মণ্ডল বলেন, আমি পাকশীতে নতুন এসেছি। অভিযোগ খতিয়ে দেখে দায়ীদের বিরুদ্ধে দাপ্তরিক ও রেল আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666