ঢাকা সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৩:২৮ পূর্বাহ্ন

বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্নের নোটিশ, প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে আন্দোলন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত: রবিবার, ৬ জুন, ২০২১
সমাবেশে বক্তারা দিচ্ছেন পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হবিবুল ইসলাম হবিবুল। ছবি: ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর

ঈশ্বরদীর পাকশীতে রেলওয়ের বাসায় বৈধভাবে বসবাসরত বাসিন্দাদের বিদ্যুৎ ও পানির লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্নের নোটিশ করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে। সে অনুযায়ী আগামীকাল সোমবার পাকশীর এমএস কলোনি, বাবুপাড়া, পাকশী বাজার এলাকা, ঝাউতলা, হরিজন কলোনিসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় সংযোগ বিচ্ছিন্নের প্রস্তুতি নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ।

এদিকে সংযোগ বিচ্ছিন্নের অভিযান কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত বন্ধের দাবি জানিয়েছেন পাকশীবাসী। আজ সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পাকশীর বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপকের কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ ও স্মারকলিপি পেশ করেন তাঁরা।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ সকাল দশটা থেকে পাকশী আমতলা এলাকায় জড়ো হতে থাকে প্রায় দুই শতাধিক নারী-পুরুষ, শিশু ও শিক্ষার্থীরা। সেখান থেকে পদযাত্রা করে সকাল ১১টায় ডিআরএম কার্যালয়ের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন সকলে। এরপর পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শহিদুল ইসলাম বরাবর স্মারক লিপি দেন। এসময় ডিআরএম আন্দোলনকারীদের ঘোষিত দাবিগুলো বিবেচনার আশ্বাস দেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কারণে পাকশীতে রেলওয়ের জায়গায় ব্রিটিশ আমল থেকে বসবাসকারীদের উচ্ছেদের জন্য নোটিশ দিয়েছে রেলওয়ে বিভাগ। নোটিশ জারীর পর থেকে তাদের উচ্ছেদ আতংকে নির্ঘুম রাত কাটছে। বাসাবাড়ি ছাড়াও প্রস্তাবিত উচ্ছেদ এলাকার মধ্যে রয়েছে শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, শতবর্ষী গাছ, বধ্যভূমিসহ নানা স্থাপনা। সেখানে বসবাস করছেন মুক্তিযোদ্ধাসহ কয়েক হাজার পরিবার। রেলের এমন ঘোষণায় তারা এখন দিশেহারা। এই পরিস্থিতিতে তারা উচ্ছেদের আগে পূনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে সরকারের বিভিন্ন মহলে দেন দরবার অব্যহত রেখেছেন। অথচ তাঁরা কিছুদিন আগে থেকে লক্ষ্য করেছেন সম্প্রতি পাকশীতে বৈধ বাসাবাড়িতে বিদ্যুৎ ও পানির লাইন কাটার এক অদ্ভুত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন। অবিলম্বে নতুন সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হবিবুল ইসলাম হবিবুলের সভাপতিত্বে ও খেলাঘরের সংগঠক সিরাজুল ইসলাম সিরুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তৃতা করেন, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আমজাদ হোসেন বাবু, লিটিল এঞ্জেল কিন্টার গার্ডেনের শিক্ষিকা ফাতেমা আক্তার পলিন, পাকশী রেলওয়ে শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আলম রতন, পাকশী ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর লিটন, ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একরামুল হক দোলন ও পাকশী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে চাইলে পাকশী বিভাগীয় বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী (ডিইই) রিফাত শাকিল  বলেন, এসব কলোনীতে অবৈধ বিদ্যুৎ ও পানির লাইন ব্যবহারকারীদের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এর ফলে বিদ্যুৎ বিতরণকেন্দ্রের কম ধারণক্ষমতাসম্পন্ন ট্রান্সফরমার থাকায় ঘন ঘন লোডশেডিং এবং পানির পাম্পগুলোতে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিয়েছে। এ কারণে এসব কলোনিতে বৈধভাবে বসবাসকারিদের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড অথবা অন্য কোন উৎস থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহণ ও নিজস্ব উদ্যোগে পানির ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এই পরামর্শ কেউ না মানলে ৬ জুনের পর থেকে কোন নোটিশ ছাড়াই বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে বলে জানান তিনি।

ডিআরএম শাহীদুল ইসলাম জানান, রেলওয়ের বাসাবাড়িতে অবৈধভাবে বসবাসকৃতদের উচ্ছেদ করতে বাসা থেকে বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন কর্মসূচি নিয়োমিত কর্মসূচির অংশ। রেলওয়ের কর্মচারীদের পুর্নবাসনের বাজেট চাওয়া হয়েছে। বাজেট এলেই তাঁদের পূর্নবাসন করার কাজ শুরু করা হবে। সেই পর্যন্ত তাঁরা বরাদ্দকৃত বাসাতেই কর্মচারীরা থাকবেন। কিন্তু অবৈধভাবে বসবাসকৃত ছিন্নমুল বা অন্যদের জন্য কিছু করার সক্ষমতা ডিআরএম হিসেবে আমার নেই। পাকশীবাসির সুবিধা-অসুবিধা দেখার দায়িত্ব ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, ইউএনও, জেলা প্রশাসক, রেলমন্ত্রী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী এবং আণবিক শক্তি কমিশন।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666