ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:২৯ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীর সাবেক মেয়র বাবলু ও বিএনপি নেতা পিন্টুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

বার্তাকক্ষ | ঈশ্বরদীনিউজটোয়েন্টিফোর.নেট
  • প্রকাশিত: সোমবার, ১ জুলাই, ২০১৯
পর্যায়ক্রমে মকলেছুর রহমান বাবলু এবং জাকারিয়া পিন্টু।

বিরোধীদলীয় নেত্রী থাকাকালে শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে হামলা মামলার সমনে হাজির না হওয়ায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, ঈশ্বরদী পৌর সভার সাবেক মেয়র ও পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি মকলেছুর রহমান বাবলু এবং বর্তমান ঈশ্বরদী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া পিন্টুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে পাবনার অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ আদালত।

জানা গেছে,  রোববার (৩০ জুন) বিএনপির ৩০ নেতা-কর্মীদের এ মামলার জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। পাবনার অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ আদালতে ৫২ জনের মধ্যে ৩০ জন আসামি হাজির হলে জামিন বাতিল করে বিচারক রুস্তম আলী সবাইকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। চাঞ্চল্যকর এ মামলার প্রধান আসামি জাকারিয়া পিন্টু ও অন্যতম আসামি বাবলুসহ ১৭ আসামি আদালতে হাজির না থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

সর্বশেষ মামলার রায় ঘোষণার জন্য বুধবার (৩ জুলাই) দিন ধার্য করেছেন আদালত। সোমবার (১ জুলাই) সকালে পাবনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক রুস্তম আলী এ দিন ধার্য করেন। ফলে দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে চলা বহুল আলোচিত মামলাটি অবশেষে সমাপ্ত হতে চলছে।

আদালতে সোমবার রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন পাবনার পিপি অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান মুক্তা ও অ্যাডভোকেট গোলাম হাসনাইন। আসামি পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম গেদা ও অ্যাডভোকেট সনৎ কুমার সরকার। পলাতক আসামিদের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট এ কে এম শামসুল হুদা।

পরে পিপি অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান মুক্তা জানান, আদালত বুধবার (৩ জুলাই) বহুল আলোচিত এই মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেছেন।

তিনি বলেন, হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী রোববার (৩০ জুলাই) সাফাই সাক্ষীর দিন ধার্য ছিল। কিন্তু আসামি পক্ষ কোনো সাফাই সাক্ষী না দিয়ে সময় প্রার্থনা করে আবেদন জানান। অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক রুস্তম আলী সময়ের আবেদন বাতিল করে সোমবার সকাল ১০টায় এ মামলায় যুক্তিতর্ক শুরুর দিন ধার্য করেন। সেই সঙ্গে হাজির হওয়া ৩০ আসামির জামিন বাতিল করে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।

তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর উত্তরাঞ্চলে দলীয় কর্মসূচিতে ট্রেনবহর নিয়ে খুলনা থেকে সৈয়দপুর যাচ্ছিলেন। ট্রেনটি ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশনে প্রবেশের সময় শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে বিএনপির নেতা-কর্মীরা অতর্কিত হামলা চালান। হামলার ঘটনায় শেখ হাসিনা ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে দলীয় কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করেন। পরে রেলওয়ে পুলিশ বাদী হয়ে বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। তদন্ত শেষে ৫২ জনকে আসামি করে আদালতে চূড়ান্ত অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
error: © স্বত্ব ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর