ঢাকা বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৪:১২ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদীতে স্কুলে স্কুলে স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: শনিবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২০
সারা দেশের সরকারি বিদ্যালয়গুলোতে চলছে স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন ২০২০। এ উপলক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বিরাজ করছে উৎসবমুখর পরিবেশ। ঈশ্বরদীর লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের দাদাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে ব্যালট পেপার সংগ্রহ করছে এক ভোটার।

সারাদেশের মতো উৎসবমুখর পরিবেশে ঈশ্বরদীর বিভিন্ন উচ্চ বিদ্যালয়ে স্কুল কেবিনেট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শনিবার (২৫ জানুয়ারি) উপজেলার সব বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রে গুলোতে ৬ষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা লাইনে দাঁড়িয়ে সুশৃঙ্খলভাবে ভোট দিতে দেখা গেছে। তাদের মধ্যে ছিল এক প্রকার উৎসবের আমেজ।

মানিক নগর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোট কেন্দ্রে আসা দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী সুমিতা সাহা, ছাইমা হক জানান, আমার ভোট আমি দিব, দেখে শোনে যোগ্য বন্ধুকে দিব। বড়রা ভোট দেয় আমরা তাকিয়ে কেবল দেখতাম, ভোট দিতে পারতাম না। আজ নিজ স্কুলে ভোট দিতে পেরে খুব ভালো লাগছে। আমারা বন্ধু সহপাঠীদের ভোট দিয়েছি। বড় হয়ে বড় নির্বাচনে ভোট যেনো দিতে পারি এই প্রত্যাশা করছি।

দাদাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী রুদ্র হোসেন ও ৬ষ্ঠ শ্রেণির জীম খাতুন জানান, আজ ভোট দিয়েছি বেশ ভালো লেগেছে। এইটা আমার জীবনের প্রথম ভোট। শুধু স্কুলে নয় আমরা বড় হয়ে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও জাতীয় নির্বাচনে ভোট দিব।

এদিকে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের এ নির্বাচনকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন শিক্ষক এবং অভিভাবকরা।

বাঁশেরবাদা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নির্বাচন কেন্দ্রে উপস্থিত অভিভাবক আরিফুর রহমান জানান, এই নির্বাচন বেশ ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে। শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার পাশাপাশি নেতৃত্ব দেয়ার যে একট বিষয় তারা কিন্তু স্কুলপর্যায় থেকে শিখতে পারবে।

অভিভাবক রোজিনা আক্তার জানান, সৎ যোগ্য দেশ প্রেমিক নেতৃত্ব তৈরিতে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে।

বিদ্যালয় সূত্র জানায়, ঈশ্বরদী উপজেলার উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণির মোট আটটি পদের বিপরীতে একাধিক শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। শিক্ষার্থী ভোট প্রদানের মাধ্যমে আগামী এক বছরের জন্য আটজনকে নির্বাচন করবে। ভোটগ্রহণ সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে চলবে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

ঈশ্বরদীর লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের দাদাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খালেদা আক্তার বলেন, স্কুল কেবিনেট নির্বাচন নিঃসন্দেহে প্রসংশনীয়। আজকের কোমলমতি শিক্ষার্থীরাই আগামী দিনে দেশ গড়বে। তাই এই নির্বাচন নেতৃত্বের বিকাশে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। পাশাপাশি দেশের নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে এই নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

ঈশ্বরদী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সেলিম আক্তার বলেন, শিক্ষার্থীদের মাঝে গণতন্ত্রচর্চা, নিজেদের অধিকার সম্পর্কে ধারণা, অন্যের মতামতের প্রতি সহিষ্ণুতা ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে আন্তরিকতা তৈরি, শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার রোধসহ নিজেদের মূল্যবোধ এবঙ দায়িত্ব সম্পর্কে শিক্ষাদানে স্কুল কেবিনেট নির্বাচন আয়োজন করা হয়। এটি নিঃসন্দেহে তাদের দায়িত্বশীল হিসেবে তৈরি করবে।

তিনি বলেন, আজকের শিক্ষার্থীরা নানা ধরনের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে অংশ নেয়ার সুযোগ পাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নেতা নির্বাচন করছে। সেই নেতার নির্দেশনা মেনে চলছে। পড়ালেখার পাশাপাশি বিদ্যালয়ের নানা ধরনের কর্মকাণ্ড যুক্ত হচ্ছে। এতে করে ওই ছাত্রছাত্রীর নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন, নিজের মূল্যবোধ তৈরিসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরও উন্নয়ন হচ্ছে।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
error: © স্বত্ব ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর