ঢাকা শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

ঈশ্বরদীতে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে প্রতারণা, গ্রেফতার ২

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৯
গ্রেফতার দুই প্রতারক।

ঈশ্বরদীর “মোবাইল ব্যাংকিং শিওর ক্যাশ”- এর দুই প্রতারক কর্মচারীকে অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন নাটোরের লালপুর থানার পুরাতন ঈশ্বরদীর রিফুজিপাড়া এয়ারপোর্ট মোড়ের মৃত বাবলুর ছেলে ইমন হোসেন ও একই এলাকার সাদীপুর গ্রামের  মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে মনজুর রহমান। তারা দুজনে শিওর পরিবেশক ডিলার মাহবুব হকের কর্মচারী ছিলেন।

আর তাদের গ্রেফতারের মাধ্যমে ঘটনার মুল রহুস্য উদঘাটিত হয়েছে বলে  বুধবার (২১ আগষ্ট) সংবাদ সম্মেলনে এ দাবী করেছেন পিবিআই পাবনা জেলা প্রধান কর্মকর্তা অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মোঃ তরিকুল ইসলাম ।

মামলা সুত্রে জানা যায়, ডিলার মাহবুব হকের শিওর ক্যাশের বিতরণ ব্যবস্থাপক হিসেবে মনজুর রহমান এবং এস আর হিসেবে ইমন হোসেন কাজ করার সময় চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত বিভিন্ন অনিয়ম ও পরিকল্পিতভাবে রুপালী ব্যাংক ঈশ্বরদী শাখার সিসি একাউন্ট থেকে ৩৩ লাখ ৩৬ হাজার টাকা আত্মসাতকরেন। এই বিষয়ে মাহবুব হক বাদী হয়ে থানায় দুইজনের নামে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতে মামলা দায়ের করেন। কিন্তু থানা পুলিশ মামলার কোন রহুস্য উদঘাটন ও আসামীদের ধরতে না পারায় আদালত মামলাটি পিবিআইতে পাঠান।

পিবিআই পাবনা জেলা প্রধান কর্মকর্তা অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মোঃ তরিকুল ইসলাম জানান,  শিওর ক্যাশ পরিবেশক মাহবুব হকের একাউন্ট থেকে অভিনব প্রতারনার মাধ্যমে আত্মসাত করে প্রথমে দেশের বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপন করেন। পরে তারা বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তাদের গ্রেফতার করা ও মামলার রহুস্য উৎঘাটনের জন্য পিবিআই সদস্য এসআই সবুজ আলীকে তদন্তকারী কর্মকর্তা করে একটি চৌকস দল গঠন করা হয়।

তিনি আরও জানান, আসামীদের মোবাইল ফোন ট্যাক করে ও তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে তাদের স্থান সনাক্ত করে বুধবার ঢাকার মিরপুর থেকে ইমনকে এবং একই দিনে ঈশ্বরদীর রেলগেট থেকে মনজুরকে আটক করা হয়। আটককৃতরা অর্থ আত্মসাতের কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন।’

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
error: © স্বত্ব ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর