ঢাকা সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

ঈশ্বরদীতে তদন্তে এসে ভুড়িভোজে খুশি হলেন জেলা কর্মকর্তা

বার্তাকক্ষ | ঈশ্বরদীনিউজটোয়েন্টিফোর.নেট
  • প্রকাশিত: সোমবার, ১ জুলাই, ২০১৯
ঈশ্বরদী উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোরশেদ আহমেদ।

অনিয়ম. দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে এসে ভুড়িভোজ করলেন জেলা কর্মকর্তারা। ঈশ্বরদী যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নানাবিধ অভিযোগে বিক্ষুব্ধ ছিলেন কর্মচারীরা।

তাঁরা লিখিত অভিযোগ করেছিলেন জেলা অফিসে। সেই সুত্র ধরে সোমবার (১লা জুলাই) বেলা ১১টায় তদন্তে আসেন তাঁরা। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নানান নাটকীয়তার মধ্যে অভিযোগের সত্যমিথ্যা যাচাই না করে রহস্যজনকভাবে মিমাংসার নামে অভিযোগকারীদের ‘অভিযোগপত্র প্রত্যাহার’ এর একটি লিখিত কাগজে স্বাক্ষর নেন তদন্ত কর্মকর্তা পাবনা জেলা যুব উন্নয়ন অধিদফতরের উপপরিচালক শরীফুল ইসলাম ।

তদন্ত কর্মকর্তারা ঈশ্বরদীর এই অফিসে আসার পরপরই যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার তল্পিবাহক কিছু লোকঅফিস চত্বরে জড়ো হয়। এরা সংবাদকর্মীদেরও সেখানে ঢুকতে দেয়নি। স্থানীয় এক ব্যাক্তীকে সেখানে মাতব্বরী করতে দেখা গেছে।

ঈশ্বরদী উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোরশেদ আহমেদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অফিস-উপস্থিতিতে অনিয়ম ও কর্মচারীদের সাথে দুর্ব্যবহার করার অভিযোগ ছিল। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী কর্মচারীরা পাবনা জেলা যুব উন্নয়ন অধিদফতরের উপপরিচালকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

প্রত্যাহারপত্রে তিনটি শর্ত দেয়া হয়: অফিসিয়াল ভাষায় উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা অফিস কাজ পরিচালনা করবেন। # তিনি কর্মচারীদের সাথে ভাল আচরণ করবেন এবং আমরা তাঁকে অফিসিয়াল কাজে সহযোগিতা করবো। # দাপ্তরিক কাজ অফিসের বাইরে না করে অফিসে করতে হবে।

প্রত্যাহারপত্রে স্বাক্ষর করেন; উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোরশেদ আহমেদ, স্টাফদের মধ্যে আফজালুর রহমার শফিকুল ইসলাম, রবিউল আলম, কোরবান আলী, মো: আলী জিন্নাহ ও আব্দুল আজিজ খান।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
error: © স্বত্ব ঈশ্বরদী নিউজ টুয়েন্টিফোর