ঢাকা রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ১২:২১ পূর্বাহ্ন

ঈশ্বরদীতে করোনা পরীক্ষায় ভোগান্তির শেষ নেই

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০
ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল।

করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য ৬০০ নমুনা সংগ্রহের পরও তা পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠাতে পারছে না ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। আগের পাঠানো নমুনার ফল এবং নমুনা পাঠানোর বিশেষ বাক্স ফেরত না আসায় এই জটিলতা তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ কর্মকর্তা ডাক্তার আসমা খান জানান, ঈশ্বরদীতে বরাদ্দকৃত নমুনা সংগ্রহের কিট জুনের ১১ তারিখের মধ্যে শেষ হয়ে যায়। ১৭ জুন থেকে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের বিভিন্ন কোম্পানির সরবরাহ করা কিট আর অ্যাম্পুল দিয়ে নমুনা সংগ্রহ শুরু করা হলেও সেগুলো পরীক্ষার জন্য রাজশাহী বা ঢাকাতে পারছে না স্বাস্থ্য বিভাগ।

জুনের ২৫ তারিখ পর্যন্ত ৬০০ নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে যাদের অধিকাংশই রূপপুর প্রকল্পের শ্রমিক-কর্মচারীদের। সেগুলো ল্যাবে পাঠানো যায়নি বলে জানান ডা. আসমা।

আসমা খান বলেন, নমুনা পাঠানোর জন্য বিশেষ ‘বক্স’ দরকার হয়। আগেরগুলো ল্যাব থেকে ফেরত আসেনি, ফলে নতুন করে নমুনা ল্যাবে পাঠানো যাচ্ছে না। এমন অবস্থায় সংগৃহীত ৬০০ নমুনা ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফ্রিজিং করা হয়েছে।

বিপুল পরিমাণ নমুনা জমে যাওয়ায় এবং কিট ও অ্যাম্পুল সংকটে নমুনা সংগ্রহ সীমিত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

যদিও ২৫ জুনের পর থেকে নতুন করে নমুনা নেয়া হচ্ছে না বলে জানা গেছে।

গত একমাসে ঈশ্বরদীতে প্রায় ১৩শ নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে যার মধ্যে ৭০০ নমুনা রাজশাহী এবং ঢাকা ল্যাবে পাঠানো হয়েছে যার অধিকাংশের ফল এসেছে।

পাবনার সিভিল সার্জন ডাক্তার মেহেদি ইকবাল জানান, ল্যাবে অতিরিক্ত চাপ থাকায় সময়মত সব নমুনা পরীক্ষা করে রিপোর্ট না আসার কারণেই এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি সাময়িক বলে মনে করেন তিনি। সংকট নিরসনে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে যোগাযোগ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২০
 
themebaishwardin3435666