ঢাকা বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৭ অপরাহ্ন

ল্যাংরা আর গণিখানের সাম্রাজ্যে ভাঙনের ছবি

ঈশ্বরদীনিউজ২৪.নেট, প্রতিবেদন
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৯
(বাঁ থেকে) আবু হাসেম চৌধুরী, ঈশা খান চৌধুরী ও মৌসম নুর

পশ্চিমবঙ্গের মালদহ জেলাকে লোকে চেনে ল্যাংরা আম আর গণিখান চৌধুরীর নামে। অতি ফলন নিয়ে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে থাকা ল্যাংরা আম রাজ্যের গণ্ডি পেরিয়ে পৌঁছে যায় ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন উপলক্ষে সম্প্রতি এই জেলায় ভোটের প্রচার করতে এসে কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, তাদের দল ক্ষমতায় এলে ল্যাংরা আম বিদেশে রপ্তানির ব্যবস্থা হবে।

আমের মতই গোটা রাজ্যের মানুষ এক ডাকে চেনে মালদহের গণিখান চৌধুরীকে। গণিখানের বাড়ি কোতয়ালী চেনেন না, মালদহে এমন মানুষ খুঁজে পেলে তাঁকে পুরস্কার দেওয়া উচিত। আম আর গণির এই চেনা গড়ে নতুন সংযোজন ভাঙনের ছবি!

বছর বছর ঐতিহ্যবাহী মালদহের কত ভূখণ্ড যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে, তার ইয়ত্তা নেই। ফি বছর বর্ষার সময় এই জেলার ভাঙনের ছবিটা আমজনতার বড্ড চেনা। এই ভাঙ্গন এবার ভোটের হাত ধরে কোতোয়ালির বাড়িকেও টুকরো টুকরো করে দিয়েছে।

বলা হত, মালদহ মানেই কংগ্রেস। গণিখানের কংগ্রেস। রাজনীতির কারবারীরা জানেন, রাজ্যে বাম বা তৃণমূলের বিজয়রথ বারবার থেমে গিয়েছে এই মালদহে। গণিখান মারা গিয়েছেন বহু বছর। তবু তাঁর নামেই ভোট বৈতরণী পার হত কংগ্রেস। কিন্তু এবারও হবে, তা বলা যাচ্ছে না। কারণ, কোতোয়ালিতে যে ভাঙন ধরেছে।

এবারের লোকসভা নির্বাচনে মালদহের ছবিটা এইরকম- মালদহ দক্ষিণ কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী গণিখানের ভাই আবু হাসেম চৌধুরী ওরফে ডালু দা। তাঁর ছেলে ঈশা খান চৌধুরী কংগ্রেসের টিকিটে প্রার্থী হয়েছেন মালদহ উত্তর কেন্দ্রে। এ পর্যন্ত রাজনীতির পাটিগণিতে কোনো ভুল ছিল না। কিন্তু কোতোয়ালির ঐতিহ্য, কংগ্রেসি পরিবারের তকমা- এ সব চুরমার হয়ে গেছে মৌসম নুরের দ্লবদলে। গণিখানের আপন বোন রুবি নুরের মেয়ে মৌসম। বছর দশেক আগে মায়ের মৃত্যুর পর পরিবারের ঐতিহ্য মেনে কংগ্রেসের হাত ধরেই রাজনীতিতে প্রবেশ পেশায় আইনজীবী মৌসমের। সেই মেয়ে দলবদলে এবার দিদির হাত ধরে মালদহ উত্তর কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী। তাঁর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কাকার ছেলে ঈশা।

পরিসংখ্যান বলছে, জেলার ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের অনেকটাই এখন তৃণমূলের দখলে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আমলে এই জেলায় কংগ্রেস ভাঙন ধরতে পেরেছে তৃণমূল। কংগ্রেসের একটি অংশের দাবি, কংগ্রেসের সাংসদ মৌসম নুর এবার জেতার ব্যাপারে ততটা নিশ্চিত ছিলেন না। তাই ভোটের টিকিট নিশ্চিত করেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন তিনি। তাঁর এই একটা সিদ্ধান্তই কোতোয়ালির বাড়িতে কার্যত আড়াআড়ি ভাঙ্গন ধরিয়ে দিয়েছে।

জোড়াফুলের টিকিটে জেতার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছেন মৌসম। তাঁর হয়ে বৃহস্পতিবার জেলায় জনসভা করেছেন মমতা। সেখানেই না থেমে নজিরবিহীনভাবে পদযাত্রাও করেছেন তৃণমূল নেত্রী। জেলার ঐতিহ্যের কথা মাথায় রেখে কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে বলেছেন, গণিখানের নাম ভাঙিয়ে আর কতদিন চলবে কংগ্রেস।

ভোটকে কেন্দ্র করে জেলায় লোক এবার খানিকটা বিভ্রান্ত। একদিকে কোতোয়ালির ঐতিহ্য মেনে কংগ্রেস প্রার্থী বাবা ও ছেলে। অন্যদিকে, পরিবারের মেয়ে মৌসম। বাড়ির লোকেদের দাবি, রাজনীতি আলাদা হলেও পরিবারে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু এই আপ্তবাক্য মেনে নিতে পারছেন না মালদহবাসী। তাঁদের মনে অবিশ্বাসের ছায়াটা ক্রমে দীর্ঘ হচ্ছে।

মৌসম অথবা ঈশা যেই জয়ী হন, কোতোয়ালির পরম্পরা, গণিখানের কংগ্রেসে যে ভাঙনের রক্তক্ষরণ শুরু হয়ে গেছে, তাতে সন্দেহ নেই।

শেয়ার করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩ - ২০২১
 
themebaishwardin3435666
%d bloggers like this: